উল্লাপাড়াসিরাজগঞ্জ

কন্যাদায়গ্রস্থ আছাতনকে আর্থিক সহযোগীতা প্রদান

আনিছুর রহমান : সলঙ্গায় অসহায় বিধবার কন্যাদানের জন্য কিছুটা হলেও আর্থিক সহযোগীতা নিয়ে পাশে দাঁড়ালেন “প্রিয় সলঙ্গার গল্প”ফেসবুক গ্রুপ। নাম আছাতন বেওয়া। স্বামী মৃত শুকুর আলী। গ্রাম-সলঙ্গা থানার ফেউকান্দি। বহু বছর আগে স্বামী মারা গেছে। দুই মেয়ে সন্তান নিয়ে তখন থেকেই দারিদ্রতার সাথে লড়াই করে চলছে অভাব- অনটনের সংসার।সহায় সম্পদ বলতে কিছুই নেই।সলঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক রাস্তার মাটি কাটা শ্রমিকের কাজ আর মানুষের বাড়ি কাজ করে চলে ৩/৪ জনের সংসার। ইতিমধ্যেই বিয়ের উপযুক্ত হয় তার বড় মেয়ে। বর পক্ষ মেয়েকে দেখতে এসে পছন্দ হওয়ায় বিয়ে পড়িয়ে তুলে নিয়ে যায়। কিন্তু বিয়ের বাজার খরচ বা মেয়েকে কাপড়-চোপড়ের যোগান দিতে হিমসিম খাচ্ছিল বিধবা মা আছাতন বেওয়া।

মানব কল্যাণ সংগঠন অনলাইন ফেসবুক “প্রিয় সলঙ্গার গল্প” গ্রুপের পক্ষ হতে গতকাল সোমবার (৬ মে) বিকেলে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ আর্থিক সহযোগিতা হিসেবে নগদ ৫ হাজার টাকা তুলে দেন বিধবা মাতা আছাতনের হাতে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংগঠনের একজন উপদেষ্টার অর্থায়নে অসহায় বিধবা আছাতনকে সহযোগীতা করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের উপদেষ্টা আলহাজ্ব দেলোয়ার হোসেন, সহকারী অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, আবদুস ছালাম মাস্টার, চিফ এডমিন শাহ আলম মাস্টার ও মডারেটর শাহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

এসময় সংগঠনের উপদেষ্টা ও সহকারি অধ্যাপক আব্দুল মান্নান জানান,একটি সুন্দর সমাজ গড়তে হলে মানবতা প্রয়োজন। যার যার অবস্থান থেকে আমরা যদি অসচ্ছল প্রতিবেশীদের সহযোগীতা ও মানব সেবায় কাজ করি তবে সমাজ হতে দারিদ্রতা দুর করা সম্ভব। আরেক উপদেষ্টা আলহাজ্ব দেলোয়ার হোসেন জানান,মানুষ মানুষের জন্য। যতদিন বেঁচে আছি সব সময় অসহায় মানুষদের সেবা করেই যাব ইনশাআল্লাহ। চীফ এডমিন শাহ আলম মাস্টার বলেন, যুব সমাজ ও বিত্তবানদের নিয়ে প্রতিটি অঞ্চলে যদি আমরা মানব কল্যাণমুলক সংগঠন গড়ে তুলি,তবে অসহায়দের পাশে দাঁড়ান আর সমাজ সেবা মুলক কাজ করা সম্ভব। তিনি আরও বলেন, আমি যদি কোন মানুষের উপকার করতে পারি তবে আমি নিজেকে প্রশান্তি ফিল করি। “প্রিয় সলঙ্গার গল্প”ফেসবুক গ্রুপের কিছুটা আর্থিক সহযোগিতা পেয়ে এ সময় বিধবা আছাতনের চোখে-মুখে এক ঝলক হাসি দেখতে পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button